মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৩৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সিলেটের পি.পি নওশাদ আহমদের সহধর্মিনীর রোগমুক্তি কামনায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল ইছাপুরা ইউনিয়ন পরিষদে বিট পুলিশিং সভা অনুষ্ঠিত বিশ্বনাথে ক্যান্সারে আক্রান্তের চিকিৎসা সহায়তা প্রদান করলেন প্রবাসী রাসেল আহমদ বিশ্বনাথে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশ নোয়াখালীতে সেটেলমেন্ট অফিসারের ২৩ বছরের কারাদণ্ড শাহজাদপুরে সৌর বিদ্যুৎ চালিত সেচ প্রকল্প বাস্তবায়নে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত সিরাজদিখানে অবৈধ ড্রেজারে পাইপ অপসারণ রাজাপুরে স্কুলের আর্থিক অনিয়মের প্রতিবাদে ও জমি রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন পাহাড়পুর বিষপাড়ায় পানিতে ডুবে- ডেড় বছর বয়সী শিশুর মর্মান্তিক মিত্যু ঝালকাঠিতে ১৬৯টি পূঁজা মন্ডপে প্রতিমা তৈরির কাজে কারিগররা ব্যস্ত

আমাকে নিয়ে আর খেলবেন না: শ্যামল

রিপোর্টারের নাম / ২৬ বার
আপডেট সময় রবিবার, ২৯ আগস্ট, ২০২১

ডেস্ক রিপোর্টঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার নিভৃত মনমথ গ্রামের যুবক শ্যামল চন্দ্র বর্মণ (৩০)। তিনি কথায় কথায় ইংরেজি শব্দ ব্যবহার করেন। তার একটি ভিডিও গত বছর ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এরপর সম্প্রতি তার বিয়ে ও ইউটিউব কেন্দ্রীক কিছু কন্টেন্ট নিয়ে ফের আলোচনায় শ্যামল। তাকে নিয়ে ট্রল করা হচ্ছে। যা নিয়ে মুখ খুলেছেন এই ভাইরাল যুবক।

শ্যামল বলেন, আপনারা সবাই জানেন আমি দরিদ্র একজন ছেলে। আর এই দরিদ্রতার জন্য সবাই আমার ফায়দা লুটতেছে। ইউটিউবার ভাইয়াদের কাছে হাতজোড় করে অনুরোধ করছি, আমাকে নিয়ে আপনারা অনেক খেলেছেন, আর খেলবেন না। আমি আর এই খেলায় থাকতে চাই না। ফেসবুক লাইভে এসে এভাবেই তাকে নিয়ে করা ট্রলের বিরুদ্ধে নিজের অসহায়ত্বের কথা বলেন শ্যামল। তিনি দাবি করেন, তাকে ব্যবহার করে ইউটিউবাররা ফায়দা নিচ্ছে।

তারাই তাকে গান গাওয়ানোর মতো কাজ করিয়েছে। এমনকি সোশ্যাল ‘হাইপ’ তোলার জন্য হিরো আলমের দিন শেষ, শ্যামলের বাংলাদেশ এ ধরনের কথাবার্তা বলানো হয়েছে বলে জানান শ্যামল। কিছুদিন আগে ফেসবুকে তার এক ভিডিও ক্লিপ ভাইরাল হয়। সেখানে তার বলা ‘হ্যাভ এ রিলাক্স, সি ইউ নট ফর মাইন্ড’ কথাটি ভাইরাল হয়। তাকে নিয়ে শুরু হয় সোশ্যাল মিডিয়ায় নোংরা রসিকতা ও ট্রল।

মূলত আরেক সোশ্যাল মিডিয়া এন্টারটেইনার আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমের কাছে একটি বিষয়ে মাফ চাইতে এসে এসব কথা বলেন শ্যামল। শ্যামল দাবি করেন, ভাইরাল হওয়ার পর তাকে অনেক ইউটিউবার বিভিন্নভাবে চাপে ফেলে ভিডিওর উপকরণ তৈরি করেছে।

তিনি বলেন, আমাকে নানাভাবে চাপে ফেলে অনেকেই ভিডিও বানিয়েছে ও গান গাইয়েছে। আমি কিছু বুঝিনি। আমার কাছে সবার ফোনের রেকর্ড আছে। হিরো আলম ভাইকে নিয়ে যে ভিডিওতে বলেছি, আমি তার সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তারা ওই ভিডিওটি নাকি ডিলিট করবে না। তাছাড়া আমাকে তারা হুমকি দিয়েছেন, তুমি যদি কাজ না করো, তাহলে তোমার খারাপ কাজ করবো।

এদিকে ফেসবুক লাইভে শ্যামলের কাছের কয়েকজনও দাবি করেন, শ্যামল সোশ্যাল মিডিয়ার তেমন কিছু বোঝেন না। তাকে নানা কিছু বোঝানো হয়েছে, যা ইচ্ছে তাই বলানো হয়েছে। উনি ফেসবুক বোঝেন না। এমনকি হিরো আলমকেও চেনেন না। হিরো আলম ভাই মামলার হুমকি দেয়ার পর বিষয়টি নিয়ে আমরা ভাবি। এরপর শ্যামলদার সঙ্গে আলাপ করি। শ্যামল দা নিজেও এখন এসব নিয়ে বিব্রত।

শ্যামলের বাবা নেপাল চন্দ্র মাছ ব্যবসায়ী। মা শেফালি রানি গৃহিণী। তিন ভাইয়ের মধ্যে শ্যামল সবার বড়। ছোট ভাই কমল চন্দ্র ও রাজা চন্দ্র বাবার সঙ্গে মাছের ব্যবসা করেন। শ্যামল চন্দ্র ২০০৫ সালে কাঠগড়া দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় অংশ নিয়ে তিনি অকৃতকার্য হন। এরপর অর্থাভাবে আর পরীক্ষা দেয়া হয়নি। সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন।





আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিস্তারিত




Theme Created By ThemesDealer.Com