শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:১৪ অপরাহ্ন

 চাঁপাইনবাবগঞ্জে আষাড়ের বৃষ্টিতে আমন ধানে আর্শীবাদ

সিফাতুল্লাহ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা। / ৩৩ বার
আপডেট সময় শুক্রবার, ১৬ জুলাই, ২০২১

আষাঢ়ের বৃষ্টির পানিতেই আমন ধানের চাষ শুরু হয়েছে। চলতি আমন মৌসুমের চারা ভালো হওয়ায় ও টানা কয়েক দিনের বৃষ্টিতে কৃষকেরা আগাম আবাদ শুরু করেছেন। কৃষকেরা এখন দিনরাত খেতে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আমন ধানের বীজতলা তৈরিতে ব্যস্ততা বেড়েছে কৃষকদের। চলতি মৌসুমের বোরো পাকা ধান কাটা শেষ হয়েছে মাত্র। আর এই ধান কাটার সঙ্গে সঙ্গেই আমন ধানের বীজতলা তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাতে শুরু করেন কৃষকরা।

এ দিকে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার হাট-বাজারে হরেক রকম হাইব্রিড জাতের আমন ধানের বীজ বিক্রি হচ্ছে। যে কারণে দোকানগুলোতে বেড়েছে কৃষকদের বিভিন্ন উন্নত ফলনশীল জাতের ধানের বীজ কেনার হিড়িক।

কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার আষাঢ়ের বৃষ্টি একটু আগেই শুরু হয়েছিল। জ্যৈষ্ঠের শেষ সপ্তাহ থেকে পুরোদমে বৃষ্টি শুরু হয়। পুরো আষাঢ় জুড়ে হাতেগোনা কয়েকটা দিন পাওয়া যাবে, যেসব দিনে বৃষ্টি হয়নি। তাই অগ্রিম বৃষ্টি পেয়ে আমন চাষে মাঠে নেমে পড়েছেন কৃষকরা। অনেকটা ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা।

কথা হয় শিবগঞ্জ উপজেলার নেজামপুর কৃষক ওবায়দুল আলীর সঙ্গে। তিনি জানান, আমি যে মাঠে জমি চাষাবাদ করেছি, সেই মাঠে বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) পর্যন্ত প্রায় বারো আনা (৭৫ শতাংশ) ধান লাগানো হয়ে গেছে। আশা করছি, ঈদের আগে (২১ জুলাই ঈদুল আজহা) এই মাঠের প্রায় সব ধান লাগানো হয়ে যাবে।

একই কথা বলেন একই গ্রামের শফিকুল ইসলামও। তিনি বলেছেন, বোরো ধান চাষ করে এবার আমরা অনেক লাভবান হয়েছি। তাই দ্রুত আমন ধানের বীজতলা তৈরির জন্য জমির আগাছা পরিষ্কার করে উপযোগী করে তুলেছি। চারাগুলো কিছুদিন পর নতুন জমিতে রোপণ করব।

চর এলাকার কৃষক হাসান সোহেল জানান, লোডশেডিংয়ের যন্ত্রণা থেকে রেহাই পেতে ও গভীর নলকূপের সেচের খরচ বাঁচাতে কৃষকেরা মধ্য আষাঢ়ের বৃষ্টির পানি জমিতে বেঁধে আগাম চাষ শুরু করে দিয়েছেন। একদিকে সেচের খরচ, অন্যদিকে শ্রমিকের উচ্চমজুরিও বেঁচেছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম জানান, চলতি মৌসুমে আমন চাষাবাদ করার জন্য জ্যৈষ্ঠ মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে বীজতলার কাজ শুরু করেছেন জেলার কৃষকরা। আষাঢ়ের শুরুতেই পুরোদমে বৃষ্টিতে আমন রোপণ শুরু করেছেন তারা। আষাঢ়ের অতিরিক্ত বৃষ্টিতে কৃষকদের খরচ অনেক কমে যাবে বলেও জানান তিনি।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৫৩ হাজার ২০৫ হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। যা গতবছর ছিল ৫৩ হাজার ২২০ হেক্টর। বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) পর্যন্ত জেলায় প্রায় ২০ হাজার ৪১০ হেক্টর জমিতে ধান রোপণ শেষ হয়েছে। এ বছর আমন মৌসুমে ২ লাখ ১১ হাজার ৮৬৬ মেট্রিক টন ধান ও ১ লাখ ৪১ হাজার ২৪৪ মেট্রিক টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে কৃষি বিভাগ।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিস্তারিত
Theme Created By ThemesDealer.Com