শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৬:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সাতক্ষীরায় সড়ক দুর্ঘটনায় বাসের হেলপার নিহত ইসকন মন্দিরে হামলা,র‌্যাবের অভিযানে আটক আরো- ৯ রাজাপুরের গৃহহীন ১১৭টি পরিবার পেল দালান ঘর কেবিষ্ট এন্ড ড্রাগিষ্টস সমিতির উপলক্ষে আলহাজ্ব ডাঃ আব্দুল হাই সরকারের স্মরণ সভা নলছিটিতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার্থে বিশেষ আইনশৃঙ্খলা সভা সারাদেশে সনাতনী ধর্মাবলম্বীদের উপর হামলা, হত্যা অগ্নিসংযোগের প্রতিবাদে মানববন্ধন বন্যার্তদের মাঝে উপজেলা চেয়ারম্যানের বাপ্পি ত্রাণ বিতরণ জেলা ছাত্রলীগের কমিটিকে স্বাগত জানিয়ে বিশ্বনাথে উপজেলা ছাত্রলীগ বাংলাদেশের ওপর থেকে ভিসা নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া ফের পুলিশের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে মোটরসাইকেলে আগুন

জবির ধূপখোলা মাঠ দখলমুক্ত করতে সংহতি সমাবেশ

রিপোর্টারের নাম / ২৭ বার
আপডেট সময় মঙ্গলবার, ৫ অক্টোবর, ২০২১

অনুপম মল্লিক আদিত্য, জবি প্রতিনিধি:

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ঐতিহ্যবাহী ধূপখোলা মাঠ সিটি কর্পোরেশনের থেকে দখলমুক্ত করতে সংহতি সমাবেশ করেছে প্রগতিশীল ছাত্র জোট, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা। সোমবার (৪ অক্টোবর) বিকাল ৪ টায় শুরু হয়ে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত ধূপখোলা মাঠের সামনে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সংহতি সমাবেশে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহ-সভাপতি সুমাইয়া সোমার সভাপতিত্বে ও বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক খায়রুল হাসান জাহিনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন স্থানীয় শিক্ষার্থী-এলাকাবাসী, জবির সাবেক শিক্ষার্থী ও ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশে সাধারন শিক্ষার্থীরা জানান, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের থাকার জায়গা দেয়নাই। থাকার জায়গা দিয়েছেন আপনারা পুরান ঢাকাবাসী। আমাদের একমাত্র হলটি হচ্ছে অনেকদিন ধরে, এখনও সিট দেওয়া হয়নি। এতদিন ধরে আপনারা আমাদের থাকার জায়গা দিয়েছেন আমাদের এই মাঠ রক্ষায় তাই আপনাদের সমর্থন আমাদের প্রয়োজন। এই মাঠ রক্ষার দায়িত্ব যেমন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের তেমনি পুরান ঢাকার এলাকাবাসীরও।

এই সমাবেশে কবি নজরুল ইসলাম সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী শামীম হোসেন বলেন, আমাদের কলেজের পার্শবর্তী বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠটি আমাদের কলেজের শিক্ষার্থীরা এবং আশেপাশের ছোট ছোট বাচ্চারা খেলার কাজে ব্যবহার করে থাকি কিন্তু সিটি করপোরেশন সেটি দখল করে তাদের কর্মকান্ড চালাচ্ছে। আমরা অবিলম্বে এই মাঠটি বহাল রাখার দাবি জানাচ্ছি।

ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক দীপক শীল বলেন, ‘এই মাঠ শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ের নয়, এটি এলাকাবাসীরও মাঠ। এই মাঠের সাথে লড়াই সংগ্রামের ইতিহাস জড়িত আছে। আমরা এর আগে যখন হলের জন্য মাঠে নামছিলাম তখন দেখেছি একটি পক্ষ এলাকাবাসী কেশিক্ষার্থীদের মুখোমুখি দাঁড় করানো হয়। এবার আসলে তা হচ্ছে না। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী এবং এলাকাবাসী একসাথে এই কাজটি করবে। ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র তিনি পুরান ঢাকায় ভোট ছাড়া আসেন না, তিনি যদি সিটি করপোরেশনের মাধ্যমে পুরান ঢাকায় ধানমন্ডি বানাইতে চায়, এখানকার জীবনমান উন্নয়নের নামে জীবন নাভিশ্বাস করতে চায়। এখানে যে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা রয়েছে তাদের কাছে থেকে এখানকার স্থানীয়রা নায্যমূল্যে জিনিসপত্র কিনতে পারে সেখানে সুপারশপ স্থাপন করে মূল্যের সাথে মূল্য সংযোজন কর যুক্ত করতে চায়। তাহলে এই মেয়রকে পুরান ঢাকায় অবাঞ্ছিত করা হবে।’

বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সাবেক সভাপতি রুহুল আমিন বলেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এর আগে হল আন্দোলনের সময় তারা দেখিয়েছে কিভাবে আন্দোলন করতে হয়, কিভাবে অধিকার বুঝে নিতে হয়। আমাদের জায়গা কিভাবে বুঝে নিতে হয় সেটি শিক্ষার্থীরা ভালো জানি। আমাদের মাঠে যদি সিটি করপোরেশন কাজ চালিয়ে যেতে থাকে তাহলে তার জবাব শিক্ষার্থীরা দিবে। বর্তমান ক্যাম্পাস বন্ধ এবং শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা থাকায় সিটি করপোরেশন এই কাজ করতে পারছে, কিন্তু ক্যাম্পাস যদি খোলা থাকতো তাহলে তারা এই সাহস দেখাতে পারতো না।

এই সমাবেশ থেকে বক্তারা মাঠ রক্ষায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে এলাকাবাসীকে সঙ্গে নিয়ে সিটি কর্পোরেশনের দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, ১৯৮৪ সালে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ ধূপখোলা খেলার মাঠটি তিন ভাগ করে এক ভাগ তৎকালীন সরকারি জগন্নাথ কলেজকে ব্যবহারের মৌখিক অনুমতি দেন। তখন থেকেই প্রতিষ্ঠানটি ধূপখোলা মাঠকে খেলার মাঠ হিসেবে ব্যবহার করছে। এই মাঠেই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়েছিলো।





আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিস্তারিত




Theme Created By ThemesDealer.Com