রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৩৮ অপরাহ্ন

নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের লাশবাহী ফ্রিজার অ্যাম্বুলেন্স উদ্বোধন

রিপোর্টারের নাম / ৬১ বার
আপডেট সময় মঙ্গলবার, ৩১ আগস্ট, ২০২১

মুহাম্মদ গোলাম মোস্তফা জিলানী

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. কামরুল হাসান বলেন, করোনাভাইরাসের প্রকোপ দেখা দেয়ার পর থেকে সেবামূলক সংস্থা নিষ্ঠা ফাউন্ডেশন যেভাবে মানবিক ও স্বাস্থ্যসেবার কাজ করেছে, তা অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। সংস্থাটি সমাজের নানা শ্রেণীপেশার মানুষের সহায়তায় অবহেলিত ও গরীব-অসহায় মানুষের সেবা দিয়ে আসছে। করোনাকালে সরকারের পাশাপাশি যেসব স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইতিবাচক ভূমিকা পালন করেছে, তাদেরকে আমরা সাধুবাদ জানাই।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক কার্যালয় প্রাঙ্গনে নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের লাশবাহী ফ্রিজার এম্বুলেন্স উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. মমিনুর রহমান। নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কামাল উদ্দিন আহমদের সভাপতিত্বে ও করোনাকালীন সেবা কমিটির প্রধান ড. মুহাম্মদ নুর হোসাইনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন নিষ্ঠার কো-চেয়ারম্য্যন ড. জাফর উল্লাহ, ভাইস-চেয়ারম্যান ছালামত উল্লাহ, জনাব এমএ সবুর, আজীবন সদস্য অধ্যাপক দিদারুল আলম, শুভাকাঙ্ক্ষী আলহাজ এসএম জলীল, শিল্পপতি জনাব শাহজাহান লিটন, পিআরও জনাব আবুল কালাম, স্বেচ্ছাসেবকপ্রধান ফখরুল প্রমুখ।

জেলা প্রশাসক মো. মমিনুর রহমান বলেন, করোনায় মৃতদের পাশে যখন আপনজনরাও গোসল ও কাফন-দাফন এবং সৎকারে এগিয়ে আসছে না, তখন নিষ্ঠা ফাউন্ডেশন সহ মানবিক সংগঠনগুলো এসব ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করে যাচ্ছে। মানবিক সংগঠনগুলোর কারণেই এখন পর্যন্ত চট্টগ্রামে কোনো রোগী অবহেলিত হয়নি। দাফন-কাফনের সংকটে পড়েনি।

ড. মুহাম্মদ নুর হোসাইন বলেন, করোনা প্রকোপের প্রথম ঢেউ থেকেই মানবিক কাজগুলো শুরু করা হয়। এতদিন সাধারণ দুটি এম্বুলেন্স দিয়ে রোগী ও লাশ পরিবহন করা হত। আজ থেকে এ খাতে যুক্ত হলো একটি লাশবাহী ফ্রিজার এম্বুলেন্স। এর মাধ্যমে সেবার ক্ষেত্রে আমরা আরেক ধাপ এগিয়ে গেলাম। এম্বুলেন্সটি ক্রয়ে যাঁরা সহায়তা করেছেন, তাঁদের সকলের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ। সবার আন্তরিক সহযোগিতায় আমাদের সেবা ও মানবিক কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

সভাপতির বক্তব্যে নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কামাল উদ্দিন আহমদ বলেন, গত দেড় বছর ধরে নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের টিম প্রায় প্রতিদিনই রোগী ও লাশ পরিবহন, দাফন-কাফন করছে। এ সংগঠন করোনাকালীন লাশ দাফন-কাফন ও সৎকার এবং মুমূর্ষু রোগী পরিবহনে সারথী হয়েছে। দাফন-কাফন ও সৎকার, রোগীকে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা প্রদান, এম্বুলেন্স দিয়ে রোগী পরিবহন ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মাধ্যমে টেলিমেডিসিন সেবা প্রদান করা হচ্ছে। ৬৯ জন স্বেচ্ছাসেবক প্রতিনিয়ত সেবা দিয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া তারাবি বঞ্চিত হাফেজ, টিউশনি নির্ভর শিক্ষকসহ সমাজের নানা শ্রেণীপেশার অবহেলিত মানুষকে আর্থিক সহায়তা দেয়া হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিস্তারিত
Theme Created By ThemesDealer.Com