শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সিএনজি ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিশ্বনাথে ১৫ গ্রামবাসীর স্মারকলিপি বিশ্বনাথে ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের কর্মশালা নওগাঁর বদলগাছীতে চাষীদের মাঝে বিনামূল্যে স্প্রে মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠিত…. ১২ কোটিরও বেশি টাকার মালিক নোয়াখালী বিআরটিএ কর্মকর্তা ফারহানুল ইসলাম! ঠাকুরগাঁওয়ে এমপি রমেশ সেনের রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল তিস্তার ভাঙ্গন ঠেকাতে এলাকাবাসীর নিজস্ব অর্থায়নে বাশ ও গাছ দিয়ে বান্ডাল নির্মাণ কলারোয়ায় পুলিশের সোর্স এর হামলায় র্যাব এর সোর্পদ আহত বিশ্বনাথে প্রবাসী কল্যান সমিতির কর্তৃক কোভিড-১৯ এ ক্ষতিগ্রস্তদের নগদ অর্থ প্রদান সিরাজদিখানে নিটল টাটা মটরসের গ্রাহক বন্ধু সুরক্ষা মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের তৃতীয় বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠিত

যশোরে ভৈরব নদে সাঁতার শিখাতে গিয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীর মৃত্যু

রাজিয়া সুলতানা / ২৪৪ বার
আপডেট সময় শুক্রবার, ২৭ আগস্ট, ২০২১

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ যশোর সদরের পালবাড়ি নওদা গ্রামের বিশ্বাস বাড়িমোড় রংঘর সংলগ্ন ভৈরব নদীতে সাঁতার শিখাতে গিয়ে পানিতে ডুবে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (২৭ আগস্ট) ভৈরব নদীতে এ ঘটনা ঘটে।

প্রতক্ষ্যদর্শী তাওহীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ফুটবল খেলা শেষ করে বন্ধুরা মিলে গোছল করতে নামে, রুহান ও সায়েম সাঁতার শিখছিলো নিজেরাই, এক পর্যায়ে দুজনই নদীর গভীরে চলে যায়, রুহানকে সবাই টেনে উপরে তুলতে পারলেও সায়েম উচুলম্মা ও স্বাস্থ্য শরীর ভারী হওয়ায় কেউ সাঁতার না জানায় চেষ্টা চালিয়েও তুলে আনতে পারিনাই বন্ধুরা, অতল গভীরে তলিয়ে যায় সায়েম।

ফায়ার সার্ভিসের এক কর্মকর্তা জানান স্থানীয় ও ৯৯৯ ফোনকল পেয়ে সাথে সাথে ছুটে আসেন ১২ সদস্যের একটি টিম, নদী গভীর হওয়ায় খুলনা ডুবুরীকে খবর দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনারা। খুলনা থেকে ডুবুরী আসতে সময় লাগবে শুনে স্থানীয় লোকজন উদ্ধার কাজে নেমে দীর্ঘ একঘন্টার চেষ্টার পর সায়েম কে ভৈরব নদের গভীর তলদেশ থেকে উদ্ধার করে আনে স্থানীয়রা।

স্থানীয় লোজকন নদ থেকে সায়েমকে উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের গাড়িতে করেই যশোর মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে জরুরি বিভাগের ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন। জরুরি বিভাগের ডাক্তার শাহীনুর রহমান সোহান জানান, হাসপাতালে আনবার কমপক্ষে দু’ঘন্টা আগে তার মৃত্যু হয়েছে।

সায়েম হুসাইন এবার ক্যান্টনমেন্ট হাই স্কুলের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন, তার পিতা মজিরুদ্দীন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অর্ডিন্যান্স ডিপোতে সিভিলে চাকরি করেন, সে সুবাদে দীর্ঘ ৩/৪ বছর যাবৎ ক্যান্টনমেন্ট সংলগ্ন নওদা গ্রামে ফয়সাল আহমেদের একতলা বাসায় ভাড়া রয়েছেন। দুই ভাই বোনের মধ্যে সায়েম ছোট, বড় বোনের বিয়ে হওয়াতে পিতামাতার একমাত্র ছেলে সায়েম পিতামাতার সঙ্গেই থাকতেন, গ্রামের বাড়ি ভোলা বলে ঈমান নামে এক স্থানীয় জানান।

উচুঁ লম্বা ও স্বাস্থ্যবান এমন এক যুবকের মর্মান্তিক মৃত্যুতে পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিস্তারিত
Theme Created By ThemesDealer.Com