বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০৭:২১ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ
দেশের সকল জেলা, থানা/উপজেলা/ইউনিয়ন এবং বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে " স্বাধীন বার্তা ২৪ " এ চীফ রিপোর্টার, স্টাফ রিপোর্টার ও প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে আগ্রহী প্রার্থীরা আজই যোগাযোগ করুন bdsadhinbarta24@gmail.com । প্রিয় পাঠক আপনিও “ স্বাধীন বার্তা ২৪ ” নিউজকে পাঠাতে পারেন আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া অপ্রীতিকর ঘটনার কথা জানাতে পারেন আপনার অভিজ্ঞতা অথবা আপনিও হতে পারেন একজন সাংবাদিক । স্বাধীন বার্তা ২৪ এর সাথে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ আমাদের সাথেই থাকুন
শিরোনামঃ
আজ থেকে যশোর জেলা লকডাউন, কঠোর অবস্থানে কাশিমপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সাগর বাংলাদেশ আত্মমর্যাদাশীল দেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে সালথায় পুলিশি সেবা ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়ে নিরাপদ সমাজ গড়ার লক্ষ্যে ষ্টিকার বিতরণ কুষ্টিয়ায় শিল্প-কলকারখানা বন্ধসহ জেলাজুড়ে সাত দিনের কঠোর লকডাউন শাহজাদপুরে প্রত্যাশা প্রকল্পের অ্যাডভোকেসি কর্মশালা অনুষ্ঠিত কুষ্টিয়ায় দেড় মাসের শিশুর করোনো পজেটিভ কুষ্টিয়ায় সর্বাত্নক লকডাউন কার্যকরে কঠোর অবস্থানে পুলিশ কুষ্টিয়ায় করোনা সংক্রমণের হার স্থিতিশীল সিরাজদিখানে লকডাউনে উপজেলা প্রশাসন ব্যাপক তৎপর কোম্পানীগঞ্জে আলোচিত ঝড় তোলা এএসপি শামীম কবির বদলি

যশোর সদরের পৌর নির্বাচনে রেন্টু চাকলাদারকে নৌকার মাঝি না করাই ফুসে উঠেছে যশোরবাসী

শাহারুল ইসলাম, ফারদিন / ২৪৭৯ বার
আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ পঞ্চম ধাপে ৩১ পৌরসভায় আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি ভোটের দিন রেখে তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। গত ১৯শে জানুয়ারি মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন ইসির জ্যেষ্ঠ সচিব মো. আলমগীর। তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়ন দাখিলের শেষ তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি।মনোনয়ন বাছাই ৪ ফেব্রুয়ারি এবং প্রত্যাহার ১১ ফেব্রুয়ারি। আর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ২৮ ফেব্রুয়ারি। যশোর পৌরসভাতেও ২৮ ফেব্রুয়ারি পৌর নির্বাচন। যশোর সদরের পৌরবাসির প্রত্যাশা ছিল আবারও নৌকার মাঝি হবে যশোর সদরের আধুনিকাউনের রুপকার জহিরুল ইসলাম রেন্টু চাকলাদার। তবে সেইটা না হওয়ায় মনোখুন্ন্য যশোর সদর পৌরবাসি। এই বিষয় নিয়ে বিভিন্ন মহলে উঠেছে সমোচনার ঝড় কেন নৌকার মাঝি রেন্টু চাকলাদার পাননি। যশোর পৌরসভাতে ১৯৭১ সালের পরে গত ৫বছরের ন্যায় কাজ কোন মেয়র এমন উন্নয়ন করেননি বলে পৌরবাসী অভিযোগ করেন।

পৌরবাসীর কথা একটাই তাহলে কি ভালো কাজের প্রতিদান নাই? যশোর শহরে বিগত ৫বছরের আগে ময়লা আবর্জনার দুর্গন্ধে ঢোকা যেতনা, জহিরুল ইসলাম রেন্টু চাকলাদার পৌর মেয়র হওয়ার পর তার অক্লান্ত পরিশ্রম ও চেষ্টায় নগরকে করেছেন দূর্গন্ধ মুক্ত, আজ দুর্গন্ধ হয়ে গেছে শুধু সৃতি। যশোর সদরের পৌরবাসির একটাই কথা ১৯৭১ সালের পরে এমন কাজ এর আগে কেউ দেখিনি রেন্টু চাকলাদারের মতো কাজ, কারোরই নজিরে নেই, তাহলে কেন তিনি আবার নমিনেশন পাইনি? রেন্টু চাকলাদার সরকারি দলীয় নমিনেশন না পাওয়াই অনেকে নিজের ফেইজবুকে আবেগময় স্ট্যাটাস দিয়েছেন তার কিছু স্কিন সর্ট নিউজের শেষের অংশে তুলে ধরা হয়েছে। যশোর সদরের পৌরবাসির একটাই দাবি বিষয়টা আবার বিবেচনা করে জহিরুল ইসলাম রেন্টু চাকলাদারকে নৌকার মাঝি করে আবারও যশোরকে আধুনিকাউনের ধারা অব্যাহত রাখতে সুযোগ দেওয়ার আকুতি সাধারণ যশোর পৌরবাসীর।

যশোর থেকে প্রকাশিত ও বহুল প্রচলিত দৈনিক গ্রামের কাগজ এর সিনিয়র ফটো সাংবাদিক এম এ মানিক এর ফেসবুকে দেওয়া একটি আবেগঘন স্ট্যাটাস হুবহু তুলে ধরা হলো–

আমি একজন সংবাদ কর্মী। প্রতিদিন ছুটতে হয় সংবাদের পেছনে। অনেক কিছুর কালের স্বাক্ষী যতটা না আমার ক্যামেরার লেন্স তার চেয়ে অধিক আমার চোখ। যশোর পৌরসভার অনেক কিছু দেখেছি নাগরিক হিসেবে। তবে বিগত পাঁচটি বছর আমার কাছে যশোর পৌরসভা মানে অন্য রকম একটি অনুভূতির নাম। এই পাঁচ বছরের
১ হাজার ৮শ’২৫ দিনের এমন কোন দিন নেই যেদিন পৌরসভায় সংবাদ সংগ্রহে যায়নি। একটি সূঁচ থেকে শুরু করে বড় বড় উন্নয়ন কার্যক্রমের প্রতিটি দৃশ্য ধারণ করেছি আমার ক্যামেরায়। সে সব ছবি ক্যামেরা মেমোরী নষ্ট হলেও আজীবন থেকে যাবে হৃদয় গহীনে। ময়লার ভাগাড় থেকে পরিচ্ছন্ন শহর তৈরীর প্রতিটি ধাপ দেখেছি নিজের চোখে।আলোকিত শহর গড়ার কষ্টসাধ্য সংগ্রাম আর বঞ্চিতদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় বিজয়ী হয়েও নিজে হয়ে গেলেন বঞ্চিত। প্রতিরাতে আলো ঝলমলে সড়ক বাতির নিচ দিয়ে বাড়ি ফিরে বিছানায় গিয়ে শুয়ে ঘুম আসে না। মনোকষ্টরা দলবেঁধে বুকের ভীতর মিছিল নিয়ে আসে।বুকের পাঁজরে কান্নার জমাট বদ্ধ হয়। জানি তার মতো মেয়র যশোর পৌরসভার ইতিহাসে দ্বিতীয় কেউ হতে পারবে না। আশায় বুক বেঁধে আছি তিনি আবার ফিরে আসবেন স্বমহিমায়, জনতার মেয়র হয়েই।

যশোরের আসাদুজ্জামান আসাদ এর ফেসবুকে দেওয়া আরও একটি স্ট্যাটাস হুবহু নিচে তুলে ধরা হলো–

স্বাধীনতার পরে যশোর পৌরসভায় যে কজন চেয়ারম্যান/মেয়র এসেছেন তাদের সকলের থেকে যশোর শহরের আধুনিকায়নে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছেন জনাব রেন্টু চাকলাদার। তিনি এমন কিছু কিছু সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যা ইতিপূর্বে অন্য কেউ পারেননি। সব মিলিয়ে যশোরের মানুষ আরেকবার রেন্টু চাকলাদারকে মেয়র হিসেবে দেখতে চেয়েছিলেন। আমরা আশা করবো বর্ষীয়ান নেতা আমার প্রিয় ভাই জনাব হায়দার গনিখান পলাশ পুর্বসুরীর অসমাপ্ত কাজগুলো এগিয়ে নিতে তাঁর সাহায্য নেবেন। জনাব রেন্টু চাকলাদরকে আগামীতে যশোরের মানুষ এমপি হিসেবে দেখতে চায়। “সন্ত্রাস নয় শান্তি..বিভেদ নয় ঐক্য.. নিরপেক্ষতাই শক্তি” এই শ্লোগান সামনে রেখে তিনি এখন থেকেই কাজ শুরু করবেন আশাকরি।

ফেসবুকের কিছু আবেগঘন স্ট্যাটাস নিচে তুলে ধরা হলো–

মেয়র রেন্টু চাকলাদারে উন্নয়ন ছবি দিলে তা শেষ করা সম্ভব হবেনা কিন্তু তার উন্নয়নের কিছু খন্ডচিত্র নিচে তুলেধরা হলো–


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিস্তারিত
Theme Created By ThemesDealer.Com