রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:০০ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ

রংপুরে বাজার ঘাটে মানছে না স্বাস্থ‍্য বিধি

রিপোর্টারের নাম / ৭৫ বার
আপডেট সময় শুক্রবার, ৯ জুলাই, ২০২১, ৫:৩২ অপরাহ্ন

তারা বলেন যে, যেভাবে জনসচেতনতা মুখ থুবড়ে পড়েছে তাতে করোনা মহামারী বাড়বে বইকি কমবে না। আর এভাবে অসেচতনতার কারনে সরকারি দেওয়া লগডাউন মুল্যহীন হয়ে পড়বে এবং আমরাও আর্থিক ভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হবো।

হীমেল মিত্র অপুঃ রংপুরে বাজার ঘাটে মানছে না স্বাস্থ‍্য বিধি। সরকার ঘোষিত দুই সপ্তাহব্যাপী কঠোর বিধিনিষেধের নবম দিন আজ শুক্রবার । করোনার সংক্রমণ রোধকল্পে কঠোর বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে মাঠে রয়েছেন পুলিশ, র‌্যাব, সেনাবাহিনী ও বিজিবির সদস্যরা। লকডাউনের শুরু থেকেই বিভিন্ন স্থানে তাদের টহল দিতে দেখা গেছে। রংপুর নগরীর বিভিন্ন সড়কে চেকপোস্টে তল্লাশি চালানো হচ্ছে।

সড়কে চেকপোস্টগুলোতে দায়িত্ব পালনরত কয়েকজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘চেকপোস্টগুলোতে এখন কার্যক্রম যেমন দেখছেন সেভাবেই চলছে। এভাবে লকডাউন হয় না। অনেক অফিস খোলা। আমি যদি বাইরে আসা ৫০০ জনকে ধরি, প্রত্যেকের জবাব আছে এবং সবার জবাবই যৌক্তিক। সব বন্ধ না করে আসলে সেভাবে লকডাউন হয় না। আমরা কষ্ট করি, আপনারা (সাংবাদিক) কষ্ট করেন, কিন্তু এর ফল আমরা পাই না, পাচ্ছি না।

আজ (৯ জুলাই ) শুক্রবার সকাল ১০ থেকে বিকাল ৬ টা ১৫ মি: পযর্ন্ত রংপুর নগরীর বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিনে দৃশ্যমান জনগন মাক্স বিহীন যত্রতত্র অহরহ।

আজ সকাল ১১ টা ৩০ মিঃ শালবন রোকেয়া চত্তর মোড়ে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান দৃশ্যমান। অভিযানে জরিমানা হচ্ছে পরবর্তীতে সেই দোকান আবার খুলছে। এ যেন ছোট্ট বেলার সেই লুকোচুরি খেলা। শহর পাড়া মহল্লা জুড়ে বেশকিছু ব্যাবসায়ী ব্যাবসাও করছে মাক্স বিহীন। আবার ক্রেতারা মাক্স ছাড়া। যারা সরকারি লগডাউনের বিধি নিষেধ মেনে ব্যবসা বন্ধ রেখেছে যাতে করোনা মহামারী থেকে পরিত্রাণ পায়।

তারা বলেন যে, যেভাবে জনসচেতনতা মুখ থুবড়ে পড়েছে তাতে করোনা মহামারী বাড়বে বইকি কমবে না। আর এভাবে অসেচতনতার কারনে সরকারি দেওয়া লগডাউন মুল্যহীন হয়ে পড়বে এবং আমরাও আর্থিক ভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হবো। তাই সরকার কে লগডাউনের বিধিনিষেধ মানাতে আরো কঠোর ভুমিকা রাখতে হবে। তাহলেই সরকারি দেওয়া লগডাউনের স্বার্থকতা আাসবে নচেৎ নয়।

শহরে চিত্র নিতে দেখা যায়, দোকানী ক্রেতা এমন কি বেশকিছু পথচারীদের মাঝে-ও মুখে মাক্স নেই। তাদের অনেক কে সরকারি লগডাউন কিষের জন্য দিয়েছে এমনটি প্রশ্ন করা হলে বলছে ভালোর জন্য অথচ তাদের কারো মুখেই মাক্স নেই। জনসচেতনতা এখানে মুখ থুবড়ে পড়েছে।

সচেতন জনগন মনে করেন যে,অসচেতন জনগনকে রুখতে হলে সরকারকে আরো কঠোর হতে হবে তা না হলে সারাদেশের জনগণ করোনা মহামারী থেকে পরিত্রাণ পাবে না। চোর-পুলিশ খেলা বন্ধ করে আমরা নিজেরা সচেতন হয়ে স্থানীয় প্রশাসনকে সহযোগিতা করে নিজে বাঁচি ও সমাজকে বাঁচাই। সবার ঐক্যবদ্ধ সহযোগিতা ও সচেতনতায়ই সম্ভব হবে এই মহামারি সংকট কাটিয়ে উঠতে।





আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিস্তারিত




Theme Created By ThemesDealer.Com