শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:৩৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
ওই ২৪০ জনের কাউকে ছাড়ছি না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী বিজয় দিবসে দেশের সব মানুষকে শপথ করাবেন প্রধানমন্ত্রী শ্রীলেখার খোলামেলা ফটোশুটের ভিডিও ভাইরাল জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী ১০নং হরিশংকরপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান খন্দকার ফারুকুজ্জামান ফরিদ যশোরে অন্ত:স্বত্তা স্ত্রী হত্যার দায়ে একজনের মৃত্যুদন্ড যশোরে ৬ তলা থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু যশোরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় যুবকের মৃত্যু খাজাঞ্চি পশ্চিম ইউনিয়ন আল ইসলাহ’র কমিটি: সভাপতি মোসাদ্দিক সম্পাদক নিজাম বর্ণাঢ্য আয়োজনে বিশ্বনাথে লার্ণিং পয়েন্টের ১৭ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন চাঁদপুরে আনসার ভিডিপির বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা

শিশু তানিশা হত্যায় সৎমায়ের মৃত্যুদণ্ড

রিপোর্টারের নাম / ৩৮ বার
আপডেট সময় সোমবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২১, ২:৫৮ অপরাহ্ন

স্টাফ রিপোর্টারঃ খুলনার আলোচিত শিশু তানিশা হত্যা মামলায় সৎমা তিথি আক্তার মুক্তাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ১০ হাজার টাকা জ‌রিমানা করা হয়েছে।

সোমবার (১৫ নভেম্বর) খুলনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মশিউর রহমান চৌধুরী এ রায় ঘোষণা করেন।

রায় ঘোষণার সময় আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। সাত কার্যদিবসে মামলাটির কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে,তেরখাদা উপজেলার আড়কান্দি গ্রামের তানিশা আনসার ব্যাটালিয়ন সদস্য খাজা শেখের কন্যা।

বান্দরবানে চাকরিরত ছিলেন খাজা। আগের স্ত্রীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হওয়ার পর খাজা ২০২০ সালের ২৯ জানুয়ারি ফকিরহাট উপজেলার আট্রাকি গ্রামের দক্ষিণপাড়া এলাকার মৃত হোসেন আলী শেখের মেয়ে মুক্তাকে বিয়ে করেন।

বিয়ের পর মোবাইল ফোন নিয়ে ব্যস্ত থাকতেন মুক্তা। বিভিন্ন ব্যক্তির সঙ্গে ইমো ও মেসেঞ্জারে কথা বলতেন। এ নিয়ে খাজা স্ত্রীকে সন্দেহ করেন। তানিশার সঙ্গে ঘুমাতো মুক্তা।

গত ২ এপ্রিল মেসেঞ্জারে এক ব্যক্তির সঙ্গে বন্ধুত্ব ও কথা বলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে উভয়ের মধ্যে ঝগড়া বাঁধে।

এক পর্যায়ে খাজা স্ত্রীকে তালাক দেওয়াসহ বিষয়টি সবাইকে জানিয়ে দেওয়ার হুমকি দেন। এরপর খাজার ওপর প্রতিশোধ নিতে তানিশাকে হত্যার পরিকল্পনা করেন মুক্তা।

৫ এপ্রিল রাত ৯টার দিকে হত্যার উদ্দেশ্যে দরজা বন্ধ করে ঘুমন্ত তানিশার ওপর আক্রমণ করেন। দা দিয়ে ঘাড়ে ও মাথায় আঘাত করতে থাকেন।

ধস্তাধস্তির শব্দ শুনে তানিশার দাদি দরজা খুলতে বলেন। কিন্তু মুক্তা দরজা খোলেননি। পরে তানিশার চাচা রাজু শেখ বাড়ি এসে দরজা খুলতে বললে মুক্তা বাইরে বের হন।

ঘরে ঢুকে তানিশার নিথর দেহ খাটের ওপর পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেন। সেখানকার চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ভিকটিমের দাদা আবুল বাশার শেখ এ ঘটনায় তেরখাদা থানায় মুক্তাকে আসামি করে মামলা করেন।

এ বছরের ৩১ মে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শফিকুল ইসলাম মুক্তাকে আসামি করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। মামলায় মোট ২৩ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন এনামুল হক, এপিপি ছিলেন শেখ ইলিয়াস হোসেন ও শাম্মি আক্তার।





আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিস্তারিত




Theme Created By ThemesDealer.Com