মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০২:৩৪ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ

সিরাজদিখানে ভুল চিকিৎসায় গাভীর মৃত্যু, দুইলক্ষ টাকার ক্ষতি

রিপোর্টারের নাম / ২৭৭ বার
আপডেট সময় মঙ্গলবার, ৭ জুলাই, ২০২০, ২:৫৭ অপরাহ্ন

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি: মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখানে ভুল চিকিৎসায় একটি গাভীর মৃত্যু হয়েছে। এতে কৃষকের প্রায় ২লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিসার চিকিৎসকের পরিবর্তে অফিস সহকারি (পিয়ন) রফিকুল ইসলাম জুয়েলের ভুল চিকিৎসায় গাভীটির মৃত্যু হয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে ভুক্ত ভোগীর অভিযোগ।

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বয়রাগাদী ইউনিয়নের ছোট পাউলদিয়া গ্রামে গত২০ এপ্রিল। বয়রাগাদী ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যসহ গন্যমান্যরা মিমাংশা করে একলাখ টাকা জরিমানা করেন পিয়ন জুয়েলকে। জুয়েল ১০ হাজার টাকা দিয়ে গত ২ মাসেও পরিশোধ করেনি বাকি টাকা।

মঙ্গলবার ৭ জুলাই বয়রাগাদী ইউনিয়ন পরিষদ আঙ্গিনায় গাভীর মালিক ছোট পাউলদিয়া গ্রামের বিল্লাল হোসেন সংবাদ সম্মেলন করে এসব অভিযোগ তুলে ধরেন।

সংবাদ সম্মেলনে বিল্লাল হোসেন আরো জানান, তিনি একজন সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষ। তার শেষ সম্বল বলতে এই গাভীটি ছিল। যার ওজন প্রায় সাড়ে ৫ মণ। এ জাতর গাভী প্রতিদিন ২০ থেকে ৩০ লিটার দুধ দেয়। ৩ বছর আগে একটি বাছুর কিনে এনে এতটা বড় করেছেন তিনি। ২ মাস আগে গাভীটি বাচা প্রসবের ৩-৪ দিন থাকতে দুধের ওলান ভাড়ি দেখা দেয়। গরুর মালিক বিল্লাল হোসেন উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিসের মাঠ কর্মী মঈনুল ইসলামকে ফোন দেন। সে সময় মাঠ কর্মী মঈনুল নারায়নগঞ্জ থাকায় পিয়নকে পাঠান এবং টেলিফোনে পরামর্শ দেন। প্রথম ১৯ এপ্রিল পিয়ন জুয়েল ইনজেকশন ঔষধ দিয়ে চলে আসেন। পরদিন গাভীটি আরো অসুস্থ হয়ে পরলে পিয়নকে জানান, পিয়ন এন্টিবায়াটিকসহ কয়েক টি ইনজেকশন প্রয়োগ করে চলে আসেন। ২ ঘন্টা পর গাভীটি আরো অসুস্থ হয়ে মারা যায়।

বিল্লাল হোসেন জানান আমি তার বিরুদ্ধে মামলা করতাম, গাভীটি ময়না তদন্ত করাতাম। কি মিমাংশার প্রস্তাব করিনি। একলাখ টাকা মিমাংশা হয়েছে। একটি চেক দিয়েছে সে একাউন্টে টাকা নেই। ১০ হাজার টাকা দিয়ে এখন আর খোঁজ নেয় না।

এ ব্যাপারে পিয়ন রফিকুল ইসলাম জুয়েল জানান, অফিস থেকে তাকে চিকিৎসায় অনেক জায়গায় পাঠানা হয়। সে সঠিক চিকিৎসা দিয়েছে কি কারনে গরুর কেন মৃত্যু হলো জানিনা। স্থানীয় চেয়ারম্যান ও তাদের লোকজনের চাপে আপোষ করেছি, এক লাখ টাকার চেক দিতে বাধ্য হয়েছি। চিকিৎসা দেওয়ার অনুমতি কে দিয়েছে এবং আপনার কি ট্রেনিং আছে কিনা জানতে চাইলে সাংবাদিকদের জুয়েল বলেন আমাকে বিভ্রান্ত করবেন না। আপনারা যা পারেন লিখেন।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ উনয়ন কর্মকর্তা ডা. হাসান আলী জানান, আমি ত্রানের কাজে উপজেলার রাজানগর গিয়েছিলাম। আমাদর লোকবল কম, ৪ টি পদ শুণ্য ২ জন ডেপুটেশনে আছে। উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়ন কাভার করা কস্টকর। তাই লোকবল না থাকায় হয়তো সে গিয়েছে। মাঠ কর্মীর পরামর্শ চিকিৎসা দিয়েছে। তার রাইট নাই চিকিৎসা দেওয়ার। আমি কোন অনুমতি দেই নাই। জুয়েলের বিরুদ্ধে গত দুই বছর আরো অনেক অভিযোগ আছে। লিখিত ভাবে উর্ধতনদের জানানা হয়েছে। এ বিষয়ে আমি কোন সিদ্ধান্ত দিতে পারি না। কারণ সরকারি চাকুরির কিছু নিয়ম কানুন আছে। কিভাবে গাভিটি মারা গেল সেটা তদন্ত ছাড়া বলা যাবে না।

বয়রাগাদী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান গাজী আলাউদ্দিন জানান, গরু মারা যাওয়ায় উত্তজিত লোকজন জুয়েলকে আটক রাখে। পরিস্থিতি সামাল দিতে আমরা তাকে নিরাপদ রাখি যাতে কেউ জুয়েলকে মারধর করতে না পারে। সে ভুল চিকিৎসার কথা স্বীকার করে। সে সময় দুই পক্ষ সমাধান চাইল আমিসহ ৪-৫ ইউপি সদস্য ও গন্যমান্যদের নিয়ে সমাধান করা হয়। বিষয়টি উপজেলা চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহম্মেদ ভাইকে অবহিত করেছি। জুয়েল ১০ হাজার টাকা দিয়ে আর খোঁজ নেয়নি। বিল্লাল খুবই গরীব মানুষ এবং জুয়েল পিয়নের চাকুরী করে। দুজনই অসহায়। গাভীটির দাম ২ থেকে আড়াই লাখ টাকা সবাই জানায়। তাই গাভীটির ২ লাখ দাম ধরে একলাখ বিল্লালের ক্ষতি ও পিয়নের এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এক লাখ টাকার একটি চেক দিয়ছিল জুয়েল। কি একাউন্টে টাকা নেই। তাই এই গরীব কৃষক যেভাবে ক্ষতি পুশিয়ে বাচঁতে পারে সে দিক টা বিবেচনা করা দরকার।





আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিস্তারিত




Theme Created By ThemesDealer.Com