শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:৩৪ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ
দেশের সকল জেলা, থানা/উপজেলা/ইউনিয়ন এবং বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে " স্বাধীন বার্তা ২৪ " এ চীফ রিপোর্টার, স্টাফ রিপোর্টার ও প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে আগ্রহী প্রার্থীরা আজই যোগাযোগ করুন bdsadhinbarta24@gmail.com । প্রিয় পাঠক আপনিও “ স্বাধীন বার্তা ২৪ ” নিউজকে পাঠাতে পারেন আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া অপ্রীতিকর ঘটনার কথা জানাতে পারেন আপনার অভিজ্ঞতা অথবা আপনিও হতে পারেন একজন সাংবাদিক । স্বাধীন বার্তা ২৪ এর সাথে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ আমাদের সাথেই থাকুন
শিরোনামঃ
মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশনের রাজবাড়ীর সভাপতি তুলি’র ঢাকায় সংবর্ধনা বদলগাছীর কোলা আদর্শ কেজি স্কুলের সামনে প্রতিষ্ঠা হলো ” মানবতার দেয়াল” রাঙ্গাবালীতে মাদকদ্রব্য সহ এক যুবক আটক কোনো ষড়যন্ত্রই আধুনিক টাউন হল নির্মাণ ঠেকাতে পারবে না -এমপি বাহার আজ বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শহীদ শেখ ফজলুল হক মনি’র ৮১তম জন্মবার্ষিকী কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে মহানবী (সাঃ) কে নিয়ে বাজে মন্তব্য করায় আটক -১ কুমিল্লার দৌলতপুরে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড, ক্ষতিগ্রস্থ ১৬ পরিবার বেলকুচি পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীর নির্বাচনী মতবিনিময় সভা কেশবপুর পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম আবারো মেয়র পদে আওয়ামী লীগের চুড়ান্ত প্রার্থী সাতক্ষীরার দেবহাটায় ব্লাক মেইলিং করে ধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষক আটক

অভিযানের নামে জাল ও মাছ বিক্রির অভিযোগ মৎস কর্মকর্তার বিরুদ্ধে

রাজিব হাওলাদার / ৭৪ বার
আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর, ২০২০




নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
পটুয়াখালীর বাউফলের সহকারি মৎস্য কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিন বিরুদ্ধে মা ইলিশ রক্ষা অভিযানে জব্দকৃত অবৈধ কারেন্ট জাল ও ইলিশ মাছ গোপনে একটি অসাধু চক্রের মাধ্যমে বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বুধবার দিনভর উপজেলা প্রশাসন ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে অবগত না করে তেতুলিয়া নদীতে দুইটি ইঞ্জিন চালিত ট্রলার নিয়ে উপজেলা সহকারি কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিনের নেতৃত্বে মা ইলিশ রক্ষা অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযান শেষে ওই দিন সন্ধ্যায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা না করে নিয়মবহির্ভূত ও বে-আইনীভাবে জব্দকৃত মাছের কিছু অংশ এতিমখানায় বিতরণ ও জালের কিছু অংশ পুড়িয়ে ফেলা হয়। বাকি মাছ ও জালের বড় একটি চালান সুকৌশলে লুকিয়ে রাখা হয় অফিস কক্ষ ও অভিযানে ব্যবহৃত ট্রলারে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, মৎস্য অফিসের কর্মচারী সোহেল, সাদ্দাম ও রুহুলের মাধ্যমে জব্দকৃত অবৈধ ইলিশ মাছ গোপনে বিক্রি করেন জসিম উদ্দিন । ১কেজি ওজনের হালি প্রতি মাছ বিক্রি করা হয় ১২’শ থেকে ১৬’শ টাকায়। এই মাছ কেনা-বেচার সাথে পৌর শহরের কয়েকজন প্রভাশালী ব্যক্তি ও সাংবাদিক জড়িত বলেও জানা যায়। অপরাদিকে জব্দকৃত অবৈধ কারেন্ট জাল দালাল জেলের মাধ্যমেই অন্য জেলেদের কাছে বিক্রি করা হয় বলে জানা যায়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, মৎস্য অফিসের সাথে জেলেদের নিবির যোগাযোগ রয়েছে। অভিযানে নামার আগেই মুঠোফোনে তথ্য চলে যায় জেলেদের কাছে। মাছ ধরার সময় সিমা নির্ধারিতও হয় ফোনে ফোনে। অভিযান চলাকালে নদী থাকে জেলে শূণ্য। নির্ধারিত সময়ের অভিযান শেষে হিংস্র হয়ে উঠে জেলেরা।

মৎস্য সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানান, এবছর বাউফলে মা ইলিশ রক্ষায় কোন তৎপরতা নেই প্রশাসনের। অসাধু জেলে ও প্রভাবশালী ব্যক্তিরা র্নিভিগ্নে দেশের সম্পদ ইলিশ ধ্বংস করছেন।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে বাউফল উপজেলা সহকারি মৎস্য কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিন স্বদেশ প্রতিদিনকে বলেন, অবৈধ জালের বিষয়ে জানেনা তিনি। আর কোন প্রশ্নে সদত্তোর পাওয়া যায়নি।

এবিষয়ে বাউফল উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. অহেদুজ্জামান বলেন, এসব বিষয়ে আমার জানা নেই। বিষয়টি পটুয়াখালী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোল্লা এমদাদুল্লাহর দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।





আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিস্তারিত







Theme Created By ThemesDealer.Com